এক মাস ধরে কেঁদে বিয়ে? বিশ্বজুড়ে বিয়ের উদ্ভট রীতি

‘যস্মিন দেশে যদাচার’ বলে একটা কথা রয়েছে। কথাটি তো আর এমনি এমনি আসেনি। একদেশে যেটা রীতিমত আবশ্যকীয় কাজ, সেটাই আরেক দেশে রীতিমত অপরাধ কিংবা পাগলামি। কেনো বলছি এ কথা?

জানেন তো, বিয়ে মানেই হলো একরাশ আনন্দ, হই-হুল্লোড় আর সেই সাথে দুটো মানুষের সারাজীবন একসাথে থাকবার মন্ত্র। তবে বিয়ে নামক এই মন্ত্রের নানা ফাঁক ফোকরে সকলে মিলে জমিয়ে আনন্দ করাটা বিয়ের প্রধান আকর্ষণ। তবে পৃথিবীর নানান দেশে নানা অদ্ভুত কর্মকান্ডের মাধ্যমে এই আনন্দ উদযাপন করা হয়। বিশ্বজুড়ে বিয়ের উদ্ভট রীতি শুনে আপনার চোখ রীতিমতো কপালে উঠবে।

আমাদের দেশে বরের হাতে যখন কনেকে তুলে দেওয়া হয় তখন কনে এবং তার পরিবার কাঁদে। কিন্তু আপনি যদি শোনেন, কোনো একটি জাতির নিয়ম হলো- বিয়ে উপলক্ষে বিয়ের আগের এক মাস কাঁদা, তখন আপনার কী মনে হবে? হ্যাঁ, এমনটাই হয় চীনের ‘তুইজা’ গোষ্ঠীর মধ্যে। এই গোষ্ঠীর মেয়েদের বিয়ের আগের ঠিক এক মাস ধরে কান্না করতে হয়। এই একমাস প্রতিদিন নিয়ম করে কনেরা এক ঘণ্টা করে কাঁদে। শুধু তাই নয় বিয়ের দিন যতই ঘনিয়ে আসে কান্নার দলের সদস্য সংখ্যা ততই বাড়তে থাকে। বিয়ের যখন ২০ দিন বাকি তখন মেয়ের সঙ্গে যোগ দেয় তার মা। বিয়ের যখন ১০ দিন বাকি থাকে তখন যোগ দেয় কনের নানি। আর শেষের বাকি কয়েকটা দিন পরিবারের সবাই এই কান্নার আসরে যোগ দেয়। তাল মিলিয়ে কাঁদতে থাকে সবাই। এটিই তাদের চিরাচরিত ঐতিহ্য।

বিয়ের পর কনে যখন নিজের বাড়ি ছেড়ে চলে আসবে তখন আর তাকে কাঁদতে হবে না! তাদের এই একমাসের ক্রন্দনসভা আমাদের কাছে হাস্যকর। কী ভাবছেন মনে মনে? বিশ্বজুড়ে বিয়ের উদ্ভট রীতি চিন্তা করে বলছেন, ভাগ্যিস ‘তুইজা’ গোষ্ঠীতে জন্ম হয়নি।

Back to top button

Adblock Detected

Please consider supporting us by disabling your ad blocker