ইউরোপা লিগের ফাইনালে সেভিয়া ও রোমা

ইউরোপা লিগের ফাইনালে সেভিয়া আরো একবার প্রত্যাবর্তনের গল্প শোনাতে চলেছে। যেখানে তাদের সঙ্গী হিসেবে রয়েছে রোমা।

উয়েফা চ্যাম্পিয়ন্স লিগের পর ফুটবলের সবচেয়ে বড় টুর্নামেন্ট হলো ইউরোপা লিগ। পহেলা জুন হাঙ্গেরির বুদাপেস্টের পুসকাস এরিনায় ইউরোপা লিগের ফাইনাল খেলবে ইতালির এএস রোমা ও স্পেনের সেভিয়া। আবার, আগামী ১১ জুন ইস্তানবুলে উয়েফা চ্যাম্পিয়ন্স লিগের ফাইনালে মুখোমুখি হতে যাচ্ছে ইংল্যান্ডের ম্যানচেস্টার সিটি ও ইতালির ইন্টার মিলান।

পুরো নব্বই মিনিটে একটি শটও পোস্টে রাখতে পারেনি রোমা। শট পোস্টে রাখা কিংবা গোল করা জরুরি ছিলও না। জরুরি ছিল নিজেদের জালকে অক্ষত রাখা। কাল রাতে বেয়ার লেভারকুসেনের মাঠে সেটিই নিশ্চিত করতে পেরেছে রোমা। সেমিফাইনালের ফিরতি লেগ গোলশূন্য ড্র করেছে রোমা। তাতে প্রথম লেগে ১-০ ব্যবধানের জয় নিয়েই ইউরোপা লিগের ফাইনালে উঠেছে জোসে মরিনিওর দল।

গতরাতে বে অ্যারেনায় কোনো আক্রমণাত্মক উচ্চাকাঙ্ক্ষা দেখায়নি রোমা। ক্লাসিক ‘মরিনহো স্টাইলে’ ম্যাচটি শেষ করে ইতালিয়ান জায়ান্টরা। প্রথম লেগের লিড রক্ষা করার জন্য ম্যাচের শেষ অবদি মরিয়া হয়ে প্রচেষ্টা করেছে সফরকারী দলটি। অন্যদিকে অনেক বেশি বল দখল থাকা সত্ত্বেও জাবি আলোনসোর শিষ্যরা রোমার ব্যাকলাইন অতিক্রম করার কোনো উপায় খুঁজে পায়নি।

অন্যদিকে ইউরোপা লিগের কিং খ্যাত সেভিয়া আবারও ফাইনালে উঠেছে। এদিন তারা জুভেন্টাসকে হারিয়েছে ২-১ গোলে। প্রথম লেগে জুভেন্টাসের সঙ্গে ১-১ গোলে ড্র করেছিল সেভিয়া। তাতে দুই লেগ মিলিয়ে ৩-২ ব্যবধানের জয়ে আরও একবার ইউরোপা লিগের ফাইনালে উঠতে পেরেছে স্প্যানিশ ক্লাবটি।

এদিন প্রথমার্ধে গোল না পাওয়া সেভিয়া দ্বিতীয়ার্ধে গোল হজম করে প্রথমে পিছিয়ে পড়েছিল। ম্যাচের ৬৫ মিনিটে জুভেন্টাসের দুসান ভ্লাহোভিক গোল করে এগিয়ে নেন দলকে। কিন্তু তারা বেশিক্ষণ এগিয়ে থাকতে পারেনি। ম্যাচের ৭১ মিনিটে সেভিয়ার স্যুসো গোল করে সমতা ফেরান। আর ৯৫ মিনিটে এরিক লামেলার গোলে ২-১ ব্যবধানের জয় নিশ্চিত হয়েছে।

সেভিয়ার ঝুলিতে ইতোমধ্যে ইউরোপা লিগের সর্বোচ্চ ছয়টি শিরোপা আছে। এবার যদি রোমাকে হারাতে পারে তাহলে রেকর্ড সপ্তম শিরোপা শোকেসে তুলবে তারা।

গত বছর ইউরোপা কনফারেন্স লিগে কনফারেন্স লিগে চ্যাম্পিয়ন হয়েছিল রোমা। এবারই প্রথমবার ইউরোপার শিরোপা জয়ের হাতছানি পাচ্ছে তারা। অন্যদিকে টুর্নামেন্টটিতে সর্বোচ্চ ছয়বারের চ্যাম্পিয়ন সেভিয়া। তাই ফাইনালে আগামী ৩১ মে পুসকাস অ্যারেনায় ফেভারিট হিসেবেই খেলতে নামবে স্প্যানিশ ক্লাবটি। সবাই এখন অধীর অপেক্ষায় আছে ফাইনালে সেভিয়া ও রোমার ম্যাচ দেখার জন্য।

Back to top button

Adblock Detected

Please consider supporting us by disabling your ad blocker