ক্যান্সার প্রতিরোধ করবেন কিভাবে

ক্যান্সার কোষ বিভাজন সংক্রান্ত রোগসমূহের সমষ্টি। কোটি কোটি কোষ দিয়ে গঠিত মানবদেহ। অনিয়ন্ত্রিতভাবে কোষ বেড়ে দেহের অন্য স্থানগুলোতে ছড়িয়ে পড়লে যে রোগ হয়, সেটিই ক্যানসার হিসেবে পরিচিত। এখন পর্যন্ত এই রোগে মৃত্যুর হার অনেক বেশি। কারণ প্রাথমিক অবস্থায় ক্যান্সার রোগ সহজে ধরা পড়ে না। ফলে শেষ পর্যায়ে গিয়ে ভালো কোনো চিকিৎসা দেয়াও সম্ভব হয় না। বাস্তবিক অর্থে এখনও পর্যন্ত ক্যান্সার প্রতিরোধ করতে পুরোপুরি কার্যকর কোনও ঔষুধ আবিষ্কৃত হয়নি।

বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা (ডব্লিউএইচও) এর মতে, বিশ্বজুড়ে মানুষের মৃত্যুর দ্বিতীয় বড় কারণ ক্যানসার, যে রোগে ২০১৮ সালে ৯৬ লাখের মতো প্রাণহানি হয়। অর্থাৎ সে বছর প্রতি ছয়জনের একজনের মৃত্যু হয় ক্যানসারে।

ক্যান্সারের কারণ সম্পর্কে আমাদের পরিষ্কার কোনো ধারণা নেই। অনেক বিজ্ঞানী মনে করেন এটি একটি ভাগ্যের ব্যাপার। কার ক্যান্সার হবে, কার হবে না, তা কেউ জোর দিয়ে বলতে পারে না। তবে ধূমপান, মদ্যপান, আর্সেনিক, এসবেস্টস, গামা-রে বা বিকিরণ, এক্স-রে, আলট্রাভায়োলেট লাইট, গাড়ি থেকে নির্গত ধোঁয়া, অনেক রাসায়নিক যৌগ হল কার্সিনোজেন, যার কাজ হল শরীরে ফ্রি রেডিক্যাল তৈরি করা। এই কালপ্রিট ফ্রি রেডিক্যাল আরএনএ (রাইবোনিউক্লিক অ্যাসিড) ও ডিএনএ ( ডিঅক্সিরাইবোনিউক্লিক অ্যাসিড) এর সাথে বিক্রিয়ার মাধ্যমে ক্ষতিসাধন করে ক্যান্সার কোষ তৈরিতে সাহায্য করে। স্থূলতা, কায়িক পরিশ্রম কম করা, দীর্ঘদিন রাবার কারখানা ও কয়লাখনিতে কাজ করা ক্যান্সারের ঝুঁকি বাড়িয়ে দিতে পারে।

ক্যান্সার প্রতিরোধ কীভাবে করবেন 

১. ওজন নিয়ন্ত্রণ

কেউ কেউ মাংস জাতীয় খাবার বা চর্বিযুক্ত খাবার বেশি খেয়ে থাকেন; এক্ষেত্রে ক্যান্সার হওয়ার ঝুঁকি বাড়ে। এক্ষেত্রে রেকটাম এবং কোলন ক্যান্সার হওয়ার সম্ভাবনা বেশি থাকে। যাদের ব্যায়াম, হাঁটাচলা কম হয়; মুটিয়ে যাবার ফলে তাদেরও ক্যান্সার হয়ে থাকে। আপনার ওজন যদি বেশি হয়, প্রাথমিকভাবে আর ওজন না বাড়ানোর দিকে মনোযোগ দিন। শারীরিক ক্রিয়াকলাপ এবং চলাচলকে সঠিকভাবে পরিচালনা করুন।

২. ধূমপান আর নয়

এক তামাকের মধ্যেই চার হাজারের মতো কেমিক্যাল রয়েছে। তার মধ্যে ৪৫টি কেমিক্যাল সরাসরি ক্যান্সার সৃষ্টি করে। এটি নানা রকম গবেষণায় প্রমাণিত। ধোয়াবিহীন তামাকও সমান ক্ষতিকর স্বাস্থ্যের জন্য। ধূমপান শুধু যে ফুসফুসের ক্যান্সারের অন্যতম কারণ তা কিন্তু নয়, এটি খাদ্যনালী স্বরযন্ত্র মুখ-গহ্বর গলা কিডনি মূত্রথলি অগ্ন্যাশয় পাকস্থলী এমনকি জরায়ুমুখের ক্যান্সার-ঝুঁকিও বাড়ায়। ক্যান্সার বিশেষজ্ঞদের মতে, মানবদেহে যত ধরনের ক্যান্সার হতে পারে তার ৩০ শতাংশের ক্ষেত্রেই ধূমপান ও তামাকের সরাসরি ভূমিকা রয়েছে। তাই আর দেরি নয়, ক্যান্সার প্রতিরোধের প্রথম ধাপ হিসেবে আজই ধূমপান ছাড়ুন।

৩. স্বাস্থ্যকর ডায়েট

স্বাস্থ্যকর খাবারের মূল বিষয়গুলো বেশ সহজবোধ্য। প্রতিবেলার খাবার তালিকায় অবশ্যই ফল এবং শাকসবজি রাখুন। ফল, শাকসবজি এবং গোটা শস্য খান। ছোট অংশগুলো নির্বাচন করুন এবং ধীরে ধীরে খান। লাল মাংস খাবেন খুবই কম। খারাপ চর্বি কমানো এবং স্বাস্থ্যকর চর্বি নির্বাচন করাও গুরুত্বপূর্ণ। ফাস্ট ফুড এবং দোকানে কেনা স্ন্যাকস খারাপ চর্বিযুক্ত, তাই এগুলো এড়িয়ে চলুন।

৪. সূর্য থেকে নিজেকে রক্ষা করুন

উষ্ণ সূর্যের আলো আমাদের জন্য খুব উপকারী। তবে এটির অত্যধিক তাপ ত্বকের ক্যান্সারের কারণ হতে পারে। ত্বকের ক্ষতি শৈশব থেকেই শুরু হয়। তাই শিশুদের সূর্যের প্রখর রোদ থেকে রক্ষা করা বিশেষভাবে গুরুত্বপূর্ণ। এজন্য সকাল ১০টা থেকে বিকেল ৪টার মধ্যে সরাসরি সূর্যের আলো থেকে দূরে থাকুন। কারণ এই সময়টাতে রোদের তাপ অনেক ক্ষতিকর। ওই সময়টাতে বের হতে হলে টুপি,ছাতা, লম্বা হাতা শার্ট এবং সানস্ক্রিন ব্যবহার করুন।

Back to top button

Adblock Detected

Please consider supporting us by disabling your ad blocker