১ যুগে সর্বোচ্চ মূল্যস্ফীতি

চলতি অর্থবছরের মে মাসে মূল্যস্ফীতি বেড়ে ৯ দশমিক ৯৪ শতাংশে দাঁড়িয়েছে। বাংলাদেশ পরিসংখ্যান ব্যুরোর (বিবিএস) সোমবার প্রকাশিত হিসাব অনুযায়ী, এটি গত ১২ বছরের মধ্যে সর্বোচ্চ। রীতিমত চোখ কপালে ওঠার মতো ১ যুগে সর্বোচ্চ মূল্যস্ফীতি আবারো। এর আগে ২০১২ সালের মার্চ মাসে মূল্যস্ফীতি ছিল ১০ দশমিক ১০ শতাংশ।

কিন্তু প্রকৃত মূল্যস্ফীতি আরও বেশি বলে দাবি করেছে ভোক্তাদের সংগঠন কনজ্যুমার অ্যাসোসিয়েশন অব বাংলাদেশ (ক্যাব)। সংগঠনটি বলছে, মূল্যস্ফীতি বাড়ার পেছনে প্রায় ১৭টি পণ্য সরাসরি অবদান রেখেছে।

এর আগে সরকার প্রস্তাবিত ২০২৩-২৪ অর্থবছরের বাজেটে সরকার গড়ে ৬ শতাংশে মূল্যস্ফীতিকে ধরে রাখার লক্ষমাত্রা দিয়েছিল। বাজেট পরবর্তী সংবাদ সম্মেলনে অর্থমন্ত্রী আ হ ম মুস্তফা কামাল মূল্যস্ফীতি নিয়ে আশঙ্কার কথা বলেছিলেন।

গতকাল সোমবার বাংলাদেশ পরিসংখ্যান ব্যুরোর (বিবিএস) সর্বশেষ মূল্যস্ফীতির হালনাগাদ তথ্য থেকে জানা গেছে, গত মে মাসে খাদ্য মূল্যস্ফীতি হয়েছে ৯ দশমিক ২৪ শতাংশ। আর খাদ্যবহির্ভূত মূল্যস্ফীতি হয়েছে ৯ দশমিক ৯৬ শতাংশ। গ্রাম ও শহরের সার্বিক মূল্যস্ফীতি প্রায় সমান। গ্রামে এখন মূল্যস্ফীতি ৯ দশমিক ৮৫ শতাংশ এবং শহরে এই হার ৯ দশমিক ৯৭ শতাংশ।

তীব্র দাবদাহের মধ্যে বিদ্যুৎ সংকট শুরু হয়েছে। সাথে নিত্য প্রয়োজনীয় পণ্যের দাম বাড়ার ফলে বাজার এখন আগুন। চাল, ডাল, তেল, লবণ, মাছ, মাংস, সবজি, মসলা ও তামাকজাতীয় পণ্যের দাম বাড়ায় খাদ্যে মূল্যস্ফীতির হার বেড়েছে বলে জানিয়েছে বিবিএস। মে মাসে খাদ্য বহির্ভূত খাতে (বাড়িভাড়া, আসবাবপত্র, গৃহস্থালি, চিকিৎসাসেবা, পরিবহন ও শিক্ষা উপকরণ) মূল্যস্ফীতির হার বেড়ে হয়েছে ৯ দশমিক ৯৬ শতাংশ, গত মাসে ছিল ৯ দশমিক ৭২ শতাংশ।

গত বছর থেকেই মূল্যস্ফীতি বাড়ছে। সাড়ে ৭ শতাংশ মূল্যস্ফীতি নিয়ে চলতি অর্থবছরের প্রথম মাস জুলাই শুরু হয়। মূল্যস্ফীতি বৃদ্ধির জন্য সরকারের পক্ষ থেকে আন্তর্জাতিক বাজারে পণ্যের মূল্যবৃদ্ধিকে দায়ী করা হয়।আগস্টে জ্বালানি তেলের রেকর্ড দাম বাড়ানোর ফলে মূল্যস্ফীতি এক লাফে ৯ দশমিক ৫২ শতাংশ উঠে যায়, যা ২০১২ সালের এপ্রিলের পর সর্বোচ্চ। এরপর টানা পাঁচ মাস ধরে মূল্যস্ফীতি কমলেও কোনো মাসেই তা সাড়ে ৮ শতাংশের নিচে নামেনি। গত তিন মাস ধরেই মূল্যস্ফীতি বৃদ্ধির ধারায় রয়েছে। আমদানিকারকেরা মূলত ডলার-সংকট এবং আমদানির এলসি খোলার ওপর কড়াকড়িকে দায়ী করছেন।

Back to top button

Adblock Detected

Please consider supporting us by disabling your ad blocker