ডিজিটাল নিরাপত্তা আইন সংশোধন: আইনমন্ত্রী

গণমাধ্যমকে নিয়ন্ত্রণ করা কিংবা মত প্রকাশের স্বাধীনতাকে খর্ব করার জন্য ডিজিটাল নিরাপত্তা আইন প্রণয়ন করা হয়নি। এ আইনের অপব্যবহার রোধে সমাধানের অংশ হিসেবে এবার এর কিছু সংশোধনী আনা হবে।

আজ রোববার ঢাকায় এক অনুষ্ঠানে আইনমন্ত্রী আনিসুল হক এ কথা বলেন। তিনি বলেছেন, সেপ্টেম্বরের মধ্যেই ডিজিটাল নিরাপত্তা আইন সংশোধন করা হবে।

তিনি বলেন, ‘সংলাপ এবং আলোচনা একটি গণতান্ত্রিক সমাজের চাবিকাঠি। তাই সরকার সমাজের বিভিন্ন অংশ এবং আন্তর্জাতিক সংস্থার সঙ্গে পরামর্শ করতে উৎসাহিত বোধ করে। সরকার ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনের বিষয়ে জাতিসংঘ মানবাধিকার বিষয়ক হাইকমিশনার অফিসের সঙ্গে দীর্ঘ আলোচনা করেছে। তাদের কিছু ইনপুট আমরা পেয়েছি এবং এটি পর্যালোচনা চলছে।’

তিনি জানান, ‘সরকার ডিজিটাল নিরাপত্তা বিষয়ে জাতিসংঘের মানবাধিকার বিষয়ক হাইকমিশনার অফিসের সঙ্গে দীর্ঘ আলোচনা করেছে, তাদের কিছু ইনপুট পেয়েছে এবং সেগুলো পর্যালোচনা করছে।’

আরো বলেছেন, ‘অনলাইনে নারীদের প্রায়ই হয়রানি করা হচ্ছে, যার সুরাহা হওয়া দরকার। ডিজিটাল স্পেসের যথেচ্ছ অপব্যবহারের মাধ্যমে দেশ, সরকার বা কোনো ব্যক্তির মানহানি করতে দেওয়া হবে না।’

গণমাধ্যমের স্বাধীনতা হরণ করতে ডিজিটাল নিরাপত্তা আইন করা হয়নি বলে ফের দাবি করেন আইনমন্ত্রী। তিনি বলেন, সাইবার অপরাধ প্রতিরোধ করতেই আইনটি করা হয়েছে। আইনটির অপব্যবহার কমাতে উদ্যোগ নেওয়া হয়েছে। এ আইনে কোনো অভিযোগ পাওয়া গেলে তা একটি সেলে পাঠানো হয়। সেল পর্যালোচনা করে যদি মামলা করার মতো উপাদান পায়, তাহলে ব্যবস্থা নেওয়া হয়। এর আগে সাংবাদিকসহ কাউকেই গ্রেপ্তার করা হচ্ছে না।

আইনমন্ত্রী বলেন, ‘স্বাধীন সাংবাদিকতা করার অধিকার সবার আছে। তবে সবসময় সত্যটাকে তুলে ধরতে হবে। সাত বছরের ছেলের হাতে প্ল্যাকার্ড দিয়ে সামাজিক মাধ্যমে দেওয়া হলো। তাও স্বাধীনতা দিবসের দিনে। এটি যদি অন্যায় না হয়, তাহলে কোনটি অন্যায়? একটি ঘটনার দুটি সাইড থাকে। আপনারা দুই সাইডই তুলে ধরবেন। জনগণ ঠিক করবে কোনটা সত্য, কোনটা মিথ্যা, কোনটা ঠিক।

বাংলাদেশে জাতিসংঘের আবাসিক সমন্বয়কারী গোয়েন লুইস এর সঞ্চালনায় অনুষ্ঠানে জাতীয় সংসদ সদস্য আহসান আদেলুর রহমান, ব্র্যাক বিশ্ববিদ্যালয়ের উপ-উপাচার্য অধ্যাপক সৈয়দ মাহফুজুল আজিজ, সিনিয়র সাংবাদিক মঞ্জুরুল আহসান বুলবুল, অধ্যাপক ড. ড. কাবেরী গায়েন প্রমুখ বক্তব্য দেন।

এই বক্তৃতা শেষে অংশগ্রহণকারীরা মুক্ত আলোচনায় অংশ নিয়ে আলোচকদের ডিজিটাল নিরাপত্তা আইন বিষয়ে বিভিন্ন প্রশ্ন করেন।

Back to top button

Adblock Detected

Please consider supporting us by disabling your ad blocker