জায়েদা দেশের দ্বিতীয় নারী সিটি মেয়র

নারায়ণগঞ্জ সিটি মেয়র সেলিনা হায়াৎ আইভীর পর জায়েদা দেশের দ্বিতীয় নারী সিটি মেয়র। আওয়ামী লীগের প্রার্থী ক্ষমতাসীন আজমত উল্লাকে হারিয়ে গাজীপুর সিটি নির্বাচনে দেশের সিটি করপোরেশনগুলোর মধ্যে দ্বিতীয় নারী মেয়র হিসেবে নির্বাচিত হয়েছেন জায়েদা খাতুন।

বৃহস্পতিবার (২৫ মে) অনুষ্ঠিত গাজীপুর সিটি নির্বাচনে টেবিল ঘড়ি প্রতীকে তিনি পেয়েছেন দুই লাখ ৩৮ হাজার ৯৩৪ ভোট। তার নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী আজমত উল্লা খান পেয়েছেন দুই লাখ ২২ হাজার ৭৩৭ ভোট।

বয়স ৭০ বছর। নির্বাচনী হলফনামায় পেশা ‘ব্যবসা’ লেখা হলেও মূলত তিনি গৃহিণী। শিক্ষাগত যোগ্যতা ‘স্বশিক্ষিত’। তাঁর স্বামী মো. মিজানুর রহমান পাঁচ বছর আগে মারা গেছেন। তিনি দুই ছেলে ও এক মেয়ের জননী। তার বিরুদ্ধে কোনো মামলার তথ্য নেই। ঘোষিত ফলাফলে বেসরকারিভাবে নির্বাচিত জায়েদা খাতুনের সবচেয়ে বড় পরিচয় তিনি গাজীপুর সিটির সাবেক মেয়র জাহাঙ্গীর আলমের মা। মনোনয়নপত্র দাখিল করার আগে জায়েদা খাতুনকে রাজনীতির মাঠে দেখা যায়নি। মূলত ছেলে জাহাঙ্গীর আলমের ইমেজকে ভিত্তি করেই তিনি রাজনীতিতে এসেছেন।

বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানকে নিয়ে বিতর্কিত মন্তব্য করে দল থেকে বহিষ্কার হন জাহাঙ্গীর। পরে দুর্নীতির অভিযোগে তাকে মেয়র পদ থেকেও বরখাস্ত করে সরকারের সংশ্লিষ্ট মন্ত্রণালয়। পরে তাকে ক্ষমা করে দলে ফেরানো হলেও মেয়র পদে দলীয় মনোনয়ন দেয়নি আওয়ামী লীগ। এজন্য স্বতন্ত্র প্রার্থী হিসেবে মনোনয়নপত্র জমা দেন জাহাঙ্গীর। তবে ঋণখেলাপি হওয়ায় তার মনোনয়নপত্র বাতিল হয়ে যায়। হাইকোর্টে গিয়েও প্রার্থিতা ফেরত পাননি তিনি। এর পরই মাকে নিয়ে মাঠে নামে তিনি। গাজীপুর সিটি নির্বাচন ও জাহাঙ্গীর আলমের প্রার্থী হওয়া নিয়ে জটিলতা এবং পরে তাঁর মাকে প্রার্থী করা নিয়ে তুমুল আলোচনা-সমালোচনা শুরু হয়। এ দিকে দৃষ্টি ছিল নগরবাসীর।

জায়েদা দেশের দ্বিতীয় নারী সিটি মেয়র হওয়ার পরও জায়েদা খাতুনের প্রতিক্রিয়া এখনো পাওয়া যায়নি। তবে তার ছেলে জাহাঙ্গীর সাংবাদিকদের বলেন, তার সম্মানের জন্যই মা জায়েদা খাতুন এই নির্বাচনে প্রার্থী হয়েছিলেন। এখন তিনি দলমত নির্বিশেষে সবাইকে নিয়ে একটি উন্নত গাজীপুর সিটি গড়ে তুলতে চান।

Back to top button

Adblock Detected

Please consider supporting us by disabling your ad blocker