বাগেরহাটে কিশোরের পেটে কুকুরের বাচ্চার দাবি

২৩ মে (মঙ্গলবার) বাগেরহাট জেলার রামপাল উপজেলার উজলকুড় গ্রামে লিটন নামের ১৮ বছরের এক কিশোর জলাতঙ্ক রোগে আক্রান্ত হয়ে মারা যান। গত তিন মাস আগে একটি কুকুর তাঁকে কামড়ে দেয়। কিন্তু কোনো সঠিক চিকিৎসা দেওয়া হয়নি। যার ফলে ধীরে ধীরে লিটনের মধ্যে মারাত্মক জলাতঙ্ক বাসা বেঁধে ফেলে। মৃত্যুর কিছুদিন আগে তাঁর অবস্থা আশঙ্কাজনক হয়ে পড়লে তাঁকে খুলনা মেডিকেল হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হয়। কিন্তু ততক্ষণে অনেক দেরি হয়ে গেছে। এই রোগ থেকে আর বাঁচানো সম্ভব হবে না বলে হাসপাতাল থেকে তাঁকে বাড়ি পাঠিয়ে দেওয়া হয়। আর সেদিন রাতেই তার মৃত্যু হয়। কিন্তু অদ্ভুত ব্যাপার হলো এই কিশোরের পেটে কুকুরের বাচ্চার দাবি করছেন অনেকে।

স্থানীয়দের দাবি লিটনের পেটে কুকুরের বাচ্চা হয়েছে। কেউ বলছেন, আল্ট্রাসনো করে দেখা গেছে। আবার কেউ বলছেন, মৃত্যুর পর তাঁর পেটে কুকুরের বাচ্চা শ্বাসরুদ্ধ হয়ে দৌড়াদৌড়ি করছিলো।

আসলে এটা কতোটুকু সত্য এবং যৌক্তিক? কোনো মানুষকে কুকুর কামড়ালে কী তার পেটে সত্যিই কুকুরের বাচ্চা হয়? বিজ্ঞান এ সর্ম্পকে কী বলে?

র‍্যাবিস আক্রান্ত কুকুর মানুষকে কামড়ালে আর সময়মতো চিকিৎসা না করালে পরিণাম হয় মৃত্যু। র‍্যাবিস আক্রান্ত কুকুরকে সাধারণ লোকজন পাগলা কুকুর বলেই জানে। প্রকৃতপক্ষে এই পাগল আচরণের জন্য দায়ী র‍্যাবিস। র‍্যাবিস-র‍্যাবডোভাইরাস গ্রুপের আরএনএ ভাইরাসজনিত রোগ। র‍্যাবিস আক্রান্ত কুকুরের মধ্যে কোনো কিছুকে কামড়ানোর প্রবৃত্তি জেগে ওঠে, ঝাঁপ দিয়ে কোনো কিছু ধরতে চায় এবং গিলে খেতে সাহায্যকারী মাংসপেশিগুলোর ক্রমাগত সংকোচন হতে থাকে। একারণে তৃষ্ণা পেলেও পানি পান করা সম্ভব হয় না। তাই হয়তো র‍্যাবিসের অন্য নাম জলাতঙ্ক।

একটি ভ্রান্ত বিশ্বাস প্রচলিত আছে যে, কুকুরের কামড় থেকে পেটে কুকুরের বাচ্চা হয়। কুকুর সম্পর্কে সতর্কতা অবলম্বনের স্বার্থে হয়তো এ ধরনের কথার প্রচলন হয়েছে। কুকুর কামড়ালে পেটে বাচ্চা হয় না এবং বাচ্চা হওয়ার কোনো প্রশ্নই আসে না। বৈজ্ঞানিক যুক্তিতে এটা খুবই হাস্যকর। আপনারাই বলুন এই কিশোরের পেটে কুকুরের বাচ্চার দাবি কতোটুকু যৌক্তিক?

কুকুরের আঁচড় বা কামড়ের পরে দেরি না করে আপনাকে নিকটস্থ হাসপাতাল বা চিকিৎসকের শরণাপন্ন হতে হবে। নইলে জলাতঙ্কের মতো ভয়ানক রোগে আপনি আক্রান্ত হবেন। বিশ্বে প্রতি ১০ মিনিটে একজন এবং প্রতিবছর প্রায় ৫৫ হাজার মানুষ জলাতঙ্ক রোগে মারা যান। তাই কুকুরের আচড় বা কামড়কে অবহেলা করবেন না।

কিন্তু একটা কথা বলুন,গ্রামের মানুষের এই ভ্রান্ত ধারণা কবে দূর হবে? এখন প্রশ্ন হলো, এই ভ্রান্ত ধারণা আর কুসংস্কারের কোনো ভালো ঔষুধ ডাক্তারদের জানা আছে কিনা৷

Back to top button

Adblock Detected

Please consider supporting us by disabling your ad blocker